বাংলাদেশের সামনে ছোটো লক্ষ্য

কাগজ অনলাইন প্রতিবেদক: ডাবলিনের মালাহাইডে ওয়ালটন ত্রিদেশীয় সিরিজের চতুর্থ ম্যাচে আগে ব্যাট করতে নেমে ১৮১ রানে অলআউট হয়েছে আয়ারল্যান্ড। জয়ের জন্য বাংলাদেশের দরকার ১৮২ রান।

সংক্ষিপ্ত স্কোর: আয়ারল্যান্ড ৪৬.৩ ওভারে ১৮১/১০।

- বিজ্ঞাপন -

সানজামুলের দ্বিতীয়: দ্বিতীয় স্পেলের দ্বিতীয় বলেই উইকেট তুলে নেন অভিষিক্ত সানজামুল ইসলাম। বাঁহাতি স্পিনারের বলে এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে পড়েন ব্যারি ম্যাক্যার্থি (১২)। ইনিংসে এটি সানজামুলের দ্বিতীয় উইকেট। আয়ারল্যান্ডের স্কোর তখন ৮ উইকেটে ১৭১।

মুস্তাফিজের জোড়া শিকার: নিজের আগের ওভারেই ফিরিয়েছিলেন কেভিন ও’ব্রায়েনকে। পরের ওভারে এসে আবার উইকেট তুলে নেন মুস্তাফিজুর রহমান। তার শর্ট বলে উইকেটকিপার মুশফিকুর রহিমকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন গ্যারি উইলসন (৬)। ইনিংসে এটি মুস্তাফিজের চতুর্থ উইকেট। ১৩৬ রানেই ৭ উইকেট হারিয়ে তখন ভীষণ বিপদে আয়ারল্যান্ড।

মোসাদ্দেকের দুর্দান্ত ক্যাচে মুস্তাফিজের তৃতীয়: শুরুর দিকে মাশরাফির বলে পোর্টারফিল্ডের সহজ একটি ক্যাচ ছেড়েছিলেন মোসাদ্দেক হোসেন। সেই মোসাদ্দেকই মুস্তাফিজের বলে দুর্দান্ত এক ক্যাচ নেন কেভিন ও’ব্রায়নের। বাঁহাতি পেসারের বল আকাশে ভাসিয়েছিলেন আইরিশ ব্যাটসম্যান। কভার বাউন্ডারি থেকে অনেকটা দৌড়ে এসে সামনে ঝাঁপিয়ে পড়ে বল তালুবন্দি করেন মোসাদ্দেক। ইনিংসে এটি মুস্তাফিজের তৃতীয় উইকেট। ও’ব্রায়েন করেন ১০। আয়ারল্যান্ডের স্কোর তখন ৬ উইকেটে ১৩৬।

উইকেট দিয়ে শুরু সানজামুলের: আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেকটা দারুণ হয়েছে সানজামুল ইসলামের। বাঁহাতি স্পিনার তার প্রথম ওভারেই পেয়েছেন উইকেট। ২৯তম ওভারের শেষ বল লং-অনের ওপর দিয়ে উড়িয়ে মারতে গিয়ে তামিমের ক্যাচে পরিণত হন এড জয়েস (৪৬)। আয়ারল্যান্ডের স্কোর তখন ৫ উইকেটে ১২৬।

ফিরেই প্রতিরোধ ভাঙলেন মুস্তাফিজ: চতুর্থ উইকেটে পঞ্চাশ রানের জুটি গড়ে ফেলেছিলেন এড জয়েস ও নেইল ও’ব্রায়েন। জুটি ভাঙতে ২৮তম ওভারে মুস্তাফিজকে আক্রমণে আনেন অধিনায়ক মাশরাফি। দ্বিতীয় স্পেলে ফিরেই ৫৫ রানের জুটি ভাঙেন ‘দ্য ফিজ’। বাঁহাতি পেসারের বল উড়িয়ে মারতে গিয়ে থার্ডম্যানে তামিম ইকবালকে ক্যাচ দেন ও’ব্রায়েন। আগের ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সেঞ্চুরি করা এই ব্যাটসম্যান এদিন ফেরেন ৩০ করেই। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে উইকেটে আসেন তার ভাই কেভিন ও’ব্রায়েন। আয়ারল্যান্ডের স্কোর তখন ৪ উইকেটে ১১৬।

সাকিবের প্রতিশোধ: সাকিব আল হাসানের প্রথম ওভারে ছক্কা মেরেছিলেন অ্যান্ড্রু ব্যালবিরনি। নিজের পরের ওভারে এসেই মধুর প্রতিশোধ নেন সাকিব। বাঁহাতি স্পিনারের সোজা বলের লাইন মিস করে বোল্ড হন ব্যালবিরনি (১২)। আয়ারল্যান্ডের স্কোর তখন ৩ উইকেটে ৬১।

মোসাদ্দেকের প্রায়শ্চিত্ত: আগের ওভারে মাশরাফির বলে পোর্টারফিল্ডের সহজ ক্যাচ ফেলেছিলেন মোসাদ্দেক। তবে পরের ওভারে প্রথমবার বোলিংয়ে এসে সেই পোর্টারফিল্ডকে ফিরিয়ে ভুলের প্রায়শ্চিত্ত করেন অফ স্পিন অলরাউন্ডার। বোলারকে ফিরতি ক্যাচ দেওয়া পোর্টারফিল্ড ২৫ বলে করেন ২২। আয়ারল্যান্ডের স্কোর তখন ২ উইকেটে ৩৭।

সহজ ক্যাচ ছাড়লেন মোসাদ্দেক: নিজের প্রথম ওভারের শেষ বলে ছক্কা খেয়েছিলেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। বাংলাদেশ অধিনায়ক তার পরের ওভারের দ্বিতীয় বলেই উইকেট পেতে পারতেন। কিন্তু শর্ট এক্সট্রা কভারে উইলিয়াম পোর্টারফিল্ডের সহজ ক্যাচ তালুবন্দি করতে পারেননি মোসাদ্দেক হোসেন।

শুরুতেই মুস্তাফিজের উইকেট: ইনিংসের প্রথম ওভারটি মেডেন নিয়ে ভালো শুরুর ইঙ্গিত দিয়েছিলেন রুবেল হোসেন। পরের ওভারে তৃতীয় বলেই বাংলাদেশকে সফলতা এনে দেন মুস্তাফিজুর রহমান। বাঁহাতি পেসারের অফ স্টাম্পের বলে খোঁচা মেরে শর্ট থার্ডম্যানে সাব্বির রহমানকে ক্যাচ দেন পল স্টার্লিং। শূন্য রানেই এক উইকেট হারায় আয়ারল্যান্ড।

টস: বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা টস জিতে আয়ারল্যান্ডকে আগে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন।

সানজামুলের অভিষেক: বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেটে নিয়মিত মুখ তিনি। এবার আন্তর্জাতিক ক্রিকেটেও অভিষেক হয়ে গেল সানজামুল ইসলামের। বাংলাদেশের ১২৪তম ক্রিকেটার হিসেবে ওয়ানডে অভিষেক হলো ২৭ বছর বয়সি বাঁহাতি এই স্পিনারের। আজ বাংলাদেশ দলে পরিবর্তন এই একটিই। সবশেষ ম্যাচের দল থেকে বাদ পড়েছেন মেহেদী হাসান মিরাজ। আয়ারল্যান্ড দলেও একটি পরিবর্তন হয়েছে। এড জয়েস দলে এসেছেন সিমি সিংয়ের জায়গায়।

বাংলাদেশ দল: মাশরাফি বিন মর্তুজা (অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, সাব্বির রহমান, মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, সানজামুল ইসলাম, রুবেল হোসেন ও মুস্তাফিজুর রহমান।

আয়ারল্যান্ড দল: উইলিয়াম পোর্টারফিল্ড (অধিনায়ক), পল স্টার্লিং, এড জয়েস, নেইল ও’ব্রায়েন, অ্যান্ড্রু ব্যালবিরনি, গ্যারি উইলসন, কেভিন ও’ব্রায়েন, জর্জ ডকরেল, ব্যারি ম্যাকার্থি, টিম মুরতাগ ও পিটার চেজ।

ডু অর ডাই ম্যাচ: বাংলাদেশ ও আয়ারল্যান্ড দুই দল একটি করে ম্যাচ হেরেছে। এ ছাড়া মুখোমুখি লড়াইয়ে দুই দলের প্রথম ম্যাচ বৃষ্টিতে পণ্ড হয়েছে। আজ যে জিতবে সেই দল এগিয়ে যাবে। প্রথম দুই ম্যাচ জিতে পয়েন্ট টেবিলে সবার ওপরে আছে নিউজিল্যান্ড।

পরিসংখ্যানে এগিয়ে বাংলাদেশ: দুই দলের আট মুখোমুখিতে পাঁচটিতেই জিতেছে বাংলাদেশ। দুটিতে জিতেছে আয়ারল্যান্ড। শেষ ম্যাচটি বৃষ্টিতে ভেসে গিয়েছিল।