জনতা ব্যাংকের ৪১৮ কোটি টাকা জব্দ

কাগজ অনলাইন প্রতিবেদক: বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে সমঝোতা স্মারকের (এমওইউ) চুক্তির শর্ত না মানায় জনতা ব্যাংকের ৪১৮ কোটি টাকা জব্দ করা হয়েছে। সম্প্রতি এই টাকা জব্দ করা হয়েছে বলে বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে।

জানা গেছে, আর্থিক সূচকের উন্নতির জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সঙ্গে করা সমঝোতা স্মারকের (এমওইউ) চুক্তি মানতে ব্যর্থ হয়েছে জনতা ব্যাংক। চুক্তির তুলনায় অতিরিক্ত ঋণ বিতরণ করেছে ব্যাংকটি। এ জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে থাকা জনতা ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট থেকে ৪১৮ কোটি টাকা কেটে নেয়া হয়।

- বিজ্ঞাপন -

কেন্দ্রীয় ব্যাংক সূত্র জানায়, আর্থিক সূচকের উন্নতির জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে সমঝোতা স্মারক চুক্তি রয়েছে জনতা ব্যাংকের। ১৩টি সূচকের উন্নতির জন্য প্রতিবছর এই চুক্তি করা হয়। চুক্তির শর্ত পরিপালন বাধ্যতামূলক। ঋণ বিতরণ, খেলাপি ঋণ, আদায়, মূলধন সংরক্ষণ, লোকসানি শাখা ইত্যাদি সূচকের উন্নতির জন্য এই চুক্তি করা হয়। ওই চুক্তি অনুসারে আগের বছরের তুলনায় ১২ শতাংশ বেশি ঋণ বিতরণ করতে পারবে জনতা ব্যাংক। ২০১৫ সালে ব্যাংকটি ৩৪ হাজার ৯৮৬ কোটি টাকা ঋণ বিতরণ করে। ২০১৬ সালে ব্যাংকটি ৪০ হাজার ৩০৩ কোটি টাকা ঋণ বিতরণ করে। এতে ঋণের প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১৫ দশমিক ১৯ শতাংশ। এ ঘটনায় বাংলাদেশ ব্যাংকের পর্ষদ সম্প্রতি ব্যাংকটির ৪১৮ কোটি টাকা জব্দের সিদ্ধান্ত নেয়।

এ বিষয়ে জনতা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এমডি আবদুস সালাম বলেন, আমাদের ঋণ বিতরণ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ১২ শতাংশের বেশি হয়েছে। এ জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংক এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তবে এসএমই ঋণের প্রবৃদ্ধি হয়েছে সাড়ে ৪ শতাংশ বেশি। বিষয়টি বাংলাদেশ ব্যাংককে জানানো হয়েছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক এই জরিমানা প্রত্যাহার করবে বলে আমরা আশা করছি।

এদিকে গত বছরে ব্যাংকটির খেলাপি ঋণ কমিয়ে ৯ দশমিক ৭৪ শতাংশে নামিয়ে আনার লক্ষ্য থাকলেও তা হয়েছে ১০ দশমিক ৪০ শতাংশ। এ ছাড়া খেলাপি ঋণ থেকে ১ হাজার ২০০ কোটি টাকা আদায়ের লক্ষ্য থাকলেও ব্যাংকটি মাত্র ৬৪০টি কোটি টাকা আদায় করতে পেরেছে। অবলোপনকৃত ঋণ থেকে ৩৩০ কোটি টাকা লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে আদায় হয়েছে মাত্র ১১১ কোটি টাকা। তা ছাড়া লোকসানি শাখা ৩০টিতে নামিয়ে আনার লক্ষ্যমাত্রা থাকলেও তা বেড়ে হয়েছে ৪৬টি।