প্রধানমন্ত্রীর ইফতারে রাজনীতিকদের মিলনমেলা

কাগজ অনলাইন প্রতিবেদক: রাজনীতিবিদদের সম্মানে আয়োজিত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ইফতারে দেশের শীর্ষ রাজনীতিকদের এক মিলনমেলায় পরিণত হয়। দেশের অধিকাংশ রাজনৈতিক দলের শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দ এবং আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতা ও সরকারের মন্ত্রীবর্গ ইফতারে অংশ নেন। শাসক জোটের বাইরে থাকা বিকল্পধারার চেয়ারম্যান ডা. বদরুদ্দোজা চৌধুরী, কমিউনিস্ট পার্টির উপদেষ্টা মঞ্জুরুল আহসান খান, বিএনপির সাবেক শীর্ষ নেতা ব্যারিস্টার নাজমুল হুদাসহ বিরোধী দল জাতীয় পার্টির শীর্ষ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

সোমবার ইফতারের আগে বিকেল থেকেই বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতারা, আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগী সংগঠনের নেতারা গণভবনের সামনে স্থাপিত বিশাল প্যান্ডেলে আসন গ্রহণ করতে থাকেন। রাজনৈতিক নেতারা একে অন্যের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন। খুনসুটিতে মেতে ওঠেন একে অপরের সঙ্গে। ইফতার পরিণত হয় এক মিলনমেলায়।

- বিজ্ঞাপন -

আসরের নামাজের পর প্রধানমন্ত্রী তার বাসভবন থেকে বের হয়ে মূল প্যান্ডেলে আসেন। তিনি প্রতিটি টেবিলে গিয়ে গিয়ে নিজ দলের নেতা ও আগত অতিথি রাজনীতিকদের সঙ্গে সালাম ও কুশল বিনিময় করেন। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে মূল মঞ্চে বসে ইফতার গ্রহণ করেন স্পিকার শিরীন শারমীন চৌধুরী, বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ, জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, বিকল্পধারা বাংলাদেশের চেয়ারম্যান বদরুদ্দোজা চৌধুরী, সিপিবি’র উপদেষ্টা মঞ্জুরুল আহসান খান, ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ-একাংশ) সভাপতি হাসানুল হক ইনু, জাসদ (একাংশ) কার্যকরী সভাপতি মাঈন উদ্দিন খান বাদল, ইসলামী ঐক্যজোটের মিজবাহুর রহমান।

আওয়ামী লীগ নেতাদের মধ্যে মঞ্চে ছিলেন- অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, জনপ্রশাসনমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, স্থানীয় সরকারমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, পুলিশের মহাপরিদর্শক কে এম শহীদুল হক। এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর মেয়ে সায়মা ওয়াজেদ পুতুলের মেয়ে শেখ হাসিনার সাথে মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন।

ইফতারে আরো অংশ নেন জাসদ একাংশের সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হক প্রধান, সাম্যবাদী দলের দিলীপ বড়ুয়া, তরিকত ফেডারেশনের নজিবুল বশর মাইজভান্ডারি, গণতান্ত্রিক পার্টির শাহাদাত হোসেন, কমিউনিস্ট কেন্দ্রের ডা. ওয়াজেদুল হক খান, ন্যাপের ইসমাইল হোসেন।
ইফতারের আগে দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন বায়তুল মোকাররম মসজিদের পেশ ইমাম মহিউদ্দীন কাসেমী।