প্রশ্নপত্র ফাঁস: অগ্রণী ব্যাংকের স্থগিত হওয়া নিয়োগ পরীক্ষা যে কোন দিন

কাগজ অনলাইন প্রতিবেদক: প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগে অগ্রণী ব্যাংকের বিকেলের শিফটের স্থগিত হওয়া পরীক্ষা স্থগিত পরীক্ষা যেকোন দিন অনুষ্ঠিত হতে পারে বলে জানানো হয়েছে। তবে সকালের পরীক্ষা বাতিল করা হবে কি না, সে বিষয়ে এখনো কোন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি। কিন্তু প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগে বিকেলের পরীক্ষা ঘোষণার পর সকালের পরীক্ষা বাতিলেরও দাবি জানিয়েছে পরীক্ষায় অংশ নেয়া শিক্ষার্থীরা।

শুক্রবার বিকেলে এই পরীক্ষা গ্রহণের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যাংকিং এন্ড ইন্স্যুরেন্স বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবু তালেব এসব কথা বলেন।

- বিজ্ঞাপন -

তিনি বলেন, আমরা পরীক্ষার এই বিষয়টি নিয়ে খুবই বিব্রত। প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগ প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত হয়ে আমরা বিকেলের পরীক্ষা স্থগিতের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। সকালের পরীক্ষা নিয়েও প্রশ্ন তোলা হচ্ছে, তবে এ বিষয়ে এখনো কোন সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে পারিনি।

তিনি জানান, পরীক্ষার্থীদের বিশাল সংখ্যার কথা মাথায় রেখে দুই শিফটে পরীক্ষা নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিলো। স্থগিত হওয়া এই পরীক্ষা কবে ও কোথায় নেয়া হবে তা পরীক্ষার অনেক আগেই শিক্ষার্থীদেরকে জানিয়ে দেয়া হবে।

শুক্রবার সকাল ১০টা থেকে ১১টা পর্যন্ত ফাঁস হওয়া প্রশ্নপত্রে অগ্রণী ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষার সকালের পর্ব অনুষ্ঠিত হয়। পরীক্ষার পর পরীক্ষার্থীরা এই পরীক্ষা নিয়ে নানা প্রশ্ন তোলেন। আগের দিন প্রশ্নপত্র ফাঁস হয় বলে অভিযোগ ওঠে। প্রথমে হাতে লেখা ও পরে প্রিন্টেড প্রশ্নের কপি পাওয়া যায়। অনেক জায়গায় শুধু উত্তরও পাওয়া যায়।

সকালের শিফটে পরীক্ষায় অংশ নিয়েছেন এমন কয়েকজন শিক্ষার্থীর সাথে চ্যানেল আই অনলাইনের কথা হয়। মূল প্রশ্নপত্রের সঙ্গে ফাঁস হওয়া প্রশ্নপত্রের হুবহু মিল থাকার কথা জানান তারা।

ফাঁস হওয়া প্রশ্নেই এই পরীক্ষা নেয়া হয়েছে বলে দাবি করেন শিক্ষার্থীরা। এ কারণে পরীক্ষার পর তাদের কাছ থেকে প্রশ্নপত্র নিয়ে নেয়া হয়েছে বলে এই পরীক্ষা বাতিলের দাবি জানান তারা।এরপর দুপুরের শিফটের পরীক্ষা স্থগিত করে কর্তৃপক্ষ।

রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষার কার্যক্রম পরিচালনা করে ব্যাংকার্স সিলেকশন কমিটি। তাদের মাধ্যমে দরপত্রের মাধ্যমে অন্য আরেকটি প্রতিষ্ঠান দায়িত্ব পেয়ে থাকে। এবারে অগ্রণী ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার পদের নিয়োগ পরীক্ষার দরপত্র পায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যাংকিং ও ইনস্যুরেন্স বিভাগ।

এর আগেও এসএসসি, এইচএসসি, বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষাসহ বিভিন্ন ধরনের চাকরির পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা ঘটেছে। এর আগে জনতা ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগ পাওয়া যায়।