ব্রাজিলের বিশ্বকাপ জিততে নেইমার-জেসুস যথেষ্ট নয়: পেলে

কাগজ অনলাইন ডেস্ক: রাশিয়া বিশ্বকাপে নেইমার ও গাব্রিয়েল জেসুস ব্রাজিলের শিরোপা জয়ের সম্ভাবনা বাড়াবে বটে; কিন্তু শিরোপা জিততে দলীয় নৈপুণ্যের দরকার বলে মনে করেন ব্রাজিলের হয়ে তিনটি বিশ্বকাপ জেতা ফুটবল কিংবদন্তি পেলে।

অনেকের মতে, ২০১৮ সালের বিশ্বকাপে ব্রাজিলের আক্রমণভাগে আলো ছড়াবেন বার্সেলোনা তারকা নেইমার ও ম্যানচেস্টার সিটির তরুণ ফরোয়ার্ড জেসুস। শিরোপা জিতিয়ে ২০১৪ সালে নিজেদের মাটিতে জার্মানির কাছে সেমি-ফাইনালে ৭-১ গোলের বিশাল হারের ক্ষতে কিছুটা হলেও স্বস্তির প্রলেপ লাগাবেন তারা।

- বিজ্ঞাপন -

কিন্তু বিশ্বকাপ জয়ের প্রশ্নে ভিন্ন মত পেলের। ১৯৫৮, ১৯৬২ ও ১৯৭০ সালে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল দলের অন্যতম এই খেলোয়াড় ব্যক্তিগত নৈপুণ্যের চেয়ে দলীয় নৈপুণ্যেই জোর দিচ্ছেন বেশি।

“শুনুন, এটা বলা অনেক কঠিন; কারণ, আজ কাল মানুষ একজন-দুইজন ভালো খেলোয়াড়ের কথায় বলে। কিন্তু যারা ম্যাচ জিতেছে এবং বিশ্বকাপ জিতেছে তারা একটি দল।”

“মাঝে মাঝে একটি দলের অধিকতর ভালো একজন খেলোয়াড় থাকতে পারে। উদাহরণ স্বরূপ বার্সেলোনার আছে লিওনেল মেসি; একজন খেলোয়াড় কিন্তু এ ছাড়াও তাদের অনেক ভালো খেলোয়াড় আছে।”

“বিশ্বকাপ জিততে অথবা ম্যাচ জিততে সুন্দর একটি দল থাকতে হবে। কেবল একজন খেলোয়াড় নয়।”

রাশিয়া বিশ্বকাপে ব্রাজিলের ভালো সম্ভাবনা দেখছেন পেলে। তার মতে, দলটিতে ভালো কিছু নতুন খেলোয়াড় আছে। দেশের বাইরে তাদের ক্লাব ফুটবল খেলার অভিজ্ঞতা জাতীয় দলে কাজে দেবে।

“আমাদের এখন যা দরকার তা হলো- সুন্দর একটি দল পাওয়া এবং তাদের খেলানো। আমি মনে করি, এটা দুর্দান্ত একটি বিশ্বকাপ হবে এবং আশা করি ব্রাজিল ফাইনালে যাবে।”

পেলের মতো নেইমারও ছিলেন ব্রাজিলের ক্লাব সান্তোসের দর্শক নন্দিত খেলোয়াড়। কিন্তু এই স্বদেশি ২০১৩ সালে বার্সেলোনায় এসে ভালো করেছে বলে মনে করেন পেলে।

“বার্সেলোনায় এসে সে অনেক উন্নতি করেছে। আমি মনে করি, রাশিয়ায় আগামী বিশ্বকাপে সেরা খেলোয়াড়দের অন্যতম একজন হওয়ার একটি সুযোগ আছে তার। আমার মতে, ভবিষ্যতে সেরা খেলোয়াড়দের মধ্যে অন্যতম একজন হবে সে।”

গত মৌসুমে সিটিতে নাম লেখানো জেসুসকেও নেইমারের পর্যায়ের খেলোয়াড় মনে করেন পেলে।

“সেও ভালো একজন খেলোয়াড়। নেইমারের মতো। যদিও সে কেবল শুরু করেছে। আমি মনে করি, তার থেকে নেইমারের অভিজ্ঞতাটা একটু বেশি। কিন্তু দুই জনের খেলার ধরন এক। ভবিষ্যতে, এই দুই ফরোয়ার্ডই ব্রাজিলের জন্য সাফল্য বয়ে আনবে।”