আয়ারল্যান্ডকে উড়িয়ে বাংলাদেশের বড় জয়

কাগজ অনলাইন প্রতিবেদক: ত্রিদেশীয় সিরিজের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে ৮ উইকেটের বিশাল জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। শুক্রবার (১৯ মে)ডাবলিনেজয়ের জন্যে স্বাগতিকদের দেওয়া ১৮২ রানে সহজ লক্ষ্যে তাড়া করতে নেমে ২৭.১ ওভারে ২ উইকেট হারিয়ে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় মাশরাফি বিন মর্তুজারা।

মোস্তাফিজুর রহমান, মাশরাফি বিন মর্তুজা আর অভিষিক্ত সানজামুল ইসলামের বোলিং তোপে ৪৬.৩ ওভারে ১৮১ রানে গুটিয়ে যায় আইরিশ শিবির। এই সুবাদে জয়ের জন্যে বাংলাদেশের লক্ষ্য দাঁড়িয়েছে ১৮২ রান।

- বিজ্ঞাপন -

সিরিজের চতুর্থ এ ম্যাচটিতে এদিন স্বাগতিকদের বিপক্ষে টস জিতে প্রথমে ফিল্ডিং সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন টাইগার অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। এই সুবাদে প্রথমে ব্যাটিং করতে নেমে নির্ধারিত ৫০ ওভার খেলার আগেই সব উইকেট হারিয়ে ফেলে আয়ারল্যান্ড।

বাংলাদেশের পক্ষে এদিন সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি কাটার মাস্টার মোস্তাফিজুর রহমান। অনেকদিন পর তার ঝুলিতে উঠেছে ৪টি উইকেট। ৯ ওভারে ২৩ রানের বিনিময়ে এই উইকেট তুলে নিয়েছেন তিনি। যেখানে দুইটি মেডিন ওভার নিয়ে নিজের নামের প্রতি সুবিচার করেছেন কিপ্টে বোলার খ্যাত এই বাহাতি পেসার।

বাংলাদেশ সময় পৌনে চারটায় শুরু হওয়া ম্যচটিতে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি স্বাগতিকদের। সবুজ উইকেটে রুবেল হোসেনের প্রথম ওভারটি মেডেনের পর মোস্তাফিজের দ্বিতীয় ওভারটিও মেডেন হয়। তবে ওভারটি মেডেনের সঙ্গে একটি উইকেটও নেন কাটার মাস্টার। অফ স্টাম্পের বাইরের বলে খোঁচা মেরে সাব্বির রহমানের হাতে ধরা পড়েন পল স্টার্লিং।

দ্বিতীয় উইকেটে ঘুরে দাঁড়াতে থাকে আয়ারল্যান্ড। মোস্তাফিজ-রুবেলদের উপর চড়াও হয়ে রানের চাকা সচল করতে থাকে অধিনায়ক পোর্টারফিল্ড। তবে মাশরাফির বলে জীবন পেয়েও সুযোগ কাজে লাগাতে পরেননি আইরিশ অধিনায়ক। পরের ওভারেই মোসাদ্দেককে ফিরতি ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে যান পোর্টারফিল্ড। পোর্টারফিল্ডের বিদায়ের পর খুব বেশি সময় উইকেটে থাকতে পারেননি বালবিরনি। সাকিবের বলে বোল্ড হওয়ার আগে তার ব্যাট থেকে আসে ৫ রান।

চতুর্থ উইকেটে নায়াল ও’ব্রায়ানকে নিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেন ইনজুরি থেকে ফেরা জয়েস। গড়ে তোলেন ৫৫ রানের জুটি। তবে এরপরই বিপজ্জনক হয়ে উঠা জুটি ভাঙেন মোস্তাফিজ। কাটার মাস্টারের বলে তামিম ইকবালের চমৎকার ক্যাচে সাজঘরে ফেরেন শূন্য রানে জীবন পাওয়া নিয়াল ও’ব্রায়ান। এরপর নিজের প্রথম ওভারেই এড জয়েসকে তামিমের তালুবন্দি করে সাজঘরে ফেরান অভিষিক্ত সানজামুল।

এরপর কেভিন ও’ব্রায়েনকে সাজঘরে ফিরিয়ে নিজের তৃতীয় উইকেটটি তুলে নেন মোস্তাফিজ। আকাশে তুলে দেওয়া বলটি ক্যাচে পরিনত করেন মোসাদ্দেক। ফেরার আগে ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান সংগ্রহ করেছেন ১১ বলে একটি চারে ১০ রান। এর কিছু পরই মোস্তাফিজের চতুর্থ শিকারে পরিনত হন উইলসন। আয়ারল্যান্ডের শেষ বিশেষজ্ঞ ব্যাটসম্যান গ্যারি উইলসনকে ফিরিয়েছেন ৬ রানে। তার ক্যাচ গ্লাভস বন্দি করেছেন মুশফিকুর রহিম।

অষ্টম উইকেট জুটিতে কিছুটা প্রতিরোধ গড়া ব্যারি ম্যাকার্থিকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলে নিজের দ্বিতীয় উইকেট তুলে নিয়েছেন সানজামুল। ফেরার আগে ম্যাকার্থি করেছেন ১২ রান।

এরপর আইরিশ শিবিরে জোড়া আঘাত হেনে ইনিংস সাঙ্গ করেছেন টাইগার দলপতি মাশরাফি বিন মুর্তজা। এদিন মাশরাফির ওপ চড়াও হতে গিয়ে মুশফিকুর রহিমকে সহজ ক্যাচ দেন জর্জ ডকরেল। ১১ নম্বর ব্যাটসম্যান পিটার চেইস ফিরেছেন উইকেটরক্ষকের ডাইভিং ক্যাচে।

সিরিজের প্রথম ম্যাচে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে মুখোমুখি হয়েছিল বাংলাদেশ। ওই ম্যাচটি বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত হওয়ায় দুই দল পয়েন্ট ভাগাভাগি করে নিয়েছিলো।

বাংলাদেশ দল : মাশরাফি বিন মুর্তজা (অধিনায়ক), সাকিব আল হাসান (সহ-অধিনায়ক), মুশফিকুর রহিম, তামিম ইকবাল, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, রুবেল হোসেন,সৌম্য সরকার, সাব্বির রহমান, মোস্তাফিজুর রহমান,মোসাদ্দেক হেসেন, সানজামুল ইসলাম।

আয়ারল্যান্ড দল : উইলিয়াম পোর্টারফিল্ড (অধিনায়ক), এন্ড্রু ব্যালবিরনি, পিটার চেজ, জর্জ ডকরেল, এড জয়সে, টিম মুরতাগ, সিমি সিং, ব্যারি ম্যাককার্থি, কেভিন ও’ব্রায়ান, নিয়াল ও’ব্রায়ান, পল স্টার্লিং, স্টুয়ার্ট থমসন, গ্যারি উইলসন ও ক্রেইগ ইয়ং।