Bhorer Kagoj logo
ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২২শে আগস্ট, ২০১৯ ইং | ৭ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১৯শে জিলহজ্জ, ১৪৪০ হিজরী

পশুর উচ্ছিষ্ট থেকে কোটি টাকা


প্রকাশঃ ২৯-০৯-২০১৫, ১২:২১ অপরাহ্ণ | সম্পাদনাঃ ২৯-০৯-২০১৫, ১২:২১ অপরাহ্ণ

14অনলাইন প্রতিবেদক : গবাদি পশুর হাড়-গোড়, খুড়, শিং, লেজ কিংম্বা রক্ত উচ্ছিষ্ট হিসেবে যার স্থান হয় আবর্জনার স্তুপে। কিন্তু কজনই বা জানেন গবাদি পশুর এসব অঙ্গ-প্রতঙ্গের সঙ্গে কোটি কোটি ডলার চলে যাচ্ছে ডাস্টবিনে? হাজারীবাগের কিছু উদ্যোমী মানুষ ময়লার স্তুপ থেকে গবাদি পশুর এসব উচ্ছিষ্ট সংগ্রহ করে বিদেশে রপ্তানি করছেন।
বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের পাশাপাশি পরিবেশকেও রা করছেন দূষণের হাত থেকে। পশুর বর্জ্য রপ্তানিতে সরকারের কাছ থেকে সহায়তা পেলে আরও বেশি বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন সম্ভব হতো বলে মনে করছেন এর রপ্তানিকারকেরা। গবাদি পশুর মাংস আর চামড়ার কদর সবার কাছেই কিন্তু এছাড়া বাকি সব অঙ্গ-প্রত্যঙ্গই ফেলে দেয়া হয় উচ্ছিষ্ট হিসেবে।
অথচ এখানে যা উচ্ছিষ্ট সেগুলোই বিদেশিরা কিনে নিচ্ছেন উৎকৃষ্ট হিসেবে। এই যেমন পশুর পাকস্থলি একটু ধুয়ে মুছে পরিস্কার করে দিলেই এর দাম হয়ে যাচ্ছে ১০ থেকে ১২ ডলার। পবিত্র কুরবানীর পশুর হাড় দিয়ে তৈরি হয় জীবনরাকারী ওষুধ ক্যাপসুলের কভার, নাড়ি দিয়ে অপারেশনের সুতা, রক্ত দিয়ে পাখির খাদ্য, চর্বি দিয়ে সাবান, পায়ের খুর দিয়ে বিভিন্ন প্রকার কিপ ইত্যাদি। অর্থাৎ গরু-খাসীর সব অংশই মানুষের কোনো না কোনো কাজে ব্যবহৃত হয়। পশু জবাইয়ের পর একটি মাঝারি আকারের গরু থেকে ১৫ থেকে ২০ কেজি হাড় ফেলে দেয়া হয়। আর এই হাড় সংগ্রহ করে প্রতিদিন ব্যবসা হয় অন্তত ১০ থেকে ১৫ লাখ টাকা। নাড়িভুঁড়ি বিক্রি হয় আরো অন্ততঃ ১২ লাখ টাকার। ব্যবসায়ীরা জানান, হাড়গোড় দিয়ে ওষুধ, বোতাম আর ঘর সাজানোর নানা উপকরণ তৈরি হয়। এছাড়া নানা দেশেই খাদ্য হিসেবে ব্যবহার হয় নাড়িভুঁড়ি। আন্তর্জাতিক বাজারে পিত্ত থলিরও রয়েছে বিশাল চাহিদা। এদিয়ে তৈরি হয় জীবন রাকারী ঔষধ।
গবাদি পশুর লিঙ্গ থেকে রপ্তানি আয় হতে পারে আরও পাঁচ কোটি ডলার। অন্যান্য অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ থেকেও আসতে পারে বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা। কিন্তু সচেতনতার অভাবে এসব চলে যাচ্ছে ডাস্টবিনে। চীন, কোরিয়া আর থাইল্যান্ডের মত দেশে উপাদেয় খাবার সুপ তৈরির কাজে ব্যবহার করা হয় গবাদী পশুর লিঙ্গ। বাংলাদেশ থেকে প্রতিটি পশু লিঙ্গ তারা কিনছে ৪ থেকে ৬ ডলারে।
এর পাশাপাশি হাড়, খুড়, দাঁত, শিং আর রক্ত দিয়ে তৈরি হয় ক্যাপসুলের কভার, জেলোটিন, ক্যামেরার ফিল্ম, সিরিস কাগজ আর পশুপাখির খাবার। এবার সারা দেশে ১ কোটি পশু কোরবানি হলে প্রতিটি গড়ে ১০ ডলার হিসেবে পাকস্থলি থেকেই অর্জিত হতে পারে প্রায় ১০ কোটি ডলার বা ৮ হাজার কোটি টাকা।
বাংলাদেশ মাংস ব্যবসায়ী সমিতি এ ব্যাপারে গবেষণা করে বলেছে, কোরবানি ঈদে শুধু ঢাকা শহরেই উৎপাদিত হয় ৩৫ হাজার মেট্রিক টন বর্জ্য। কোরবানির বর্জ্য হলো হাড়, শিং, নাড়িভুঁড়ি, মূত্রথলি, রক্ত চর্বি, পিত্ত এবং চামড়ার ওয়েস্টেজ অংশ। এসব উচ্ছিষ্ট শতভাগ রফতানিযোগ্য। গরুর হাড় দিয়ে তৈরি হয় জীবন রাকারী ক্যাপসুলের কভার। নাড়ি দিয়ে তৈরি হয় অপারেশনের সুতা। চর্বি দিয়ে সাবান। নাড়িকোষ দিয়ে তৈরি হয় জাপানের জনপ্রিয় খাবার সুসেড রুল। এভাবেই পশুবর্জ্য মানুষের কোনো না কোনো কাজে ব্যবহৃত হয়। এগুলো রফতানি করলে শতকোটি টাকা আয় করা সম্ভব শুধু কোরবানি ঈদকেন্দ্রিক। বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট বলছে, কোরবানির বর্জ্য দিয়ে উৎকৃষ্ট জৈব সার তৈরি করা যাবে। দেশে মাটির আশঙ্কাজনক হারে কমে যাওয়া উর্বরতা বাড়াতে ব্যাপক ভূমিকা পালন করতে পারে। শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে পশু উৎপাদন ও ব্যবস্থাপনা বিভাগ বলছে, ছাগল, ভেড়া, মহিষের উচ্ছিষ্টাংশ ব্যবহার করে দেশের পশু ও মৎস্য খাদ্যের প্রোটিন চাহিদা পূরণ করা যেতে পারে। খামারিরা প্রতি কেজি প্রোটিন ৭০ থেকে ৮০ টাকায় আমদানি করছে। অথচ কোরবানিসহ পশুর উচ্ছিষ্ট ও বর্জ্য ব্যবহার করে প্রোটিন উৎপাদন করা সম্ভব। এতে প্রতি কেজি প্রোটিন উৎপাদনে খরচ হবে ৩ থেকে ৪ টাকা। তবে আশার কথা পশুবর্জ্যের এ সম্ভাবনা এখন সরকারের নজরেও এসেছে। সংশ্লিষ্টদের মতে, ঠিকমত সংরণ এবং জনসচেতনা তৈরি করতে পারলে চামড়া শিল্পের মত শুধু পশুবর্জ্য দিয়েই আরেকটি শিল্প দাঁড়িয়ে যেতে পারে।



পাঠকের মতামত...

Top