পিঁপড়া বিদ্যা : জুলি রহমান

সোমবার, ৪ জুলাই ২০১৬

বলেছি তো

লিঙ্গভেদে আচ্ছন্ন নই আর!

লালা মুখে হেঁটো না পথ

শ্রমিক পিপীলিকা।

সঞ্চয়ী খাদ্য নিয়ে গর্তে লুকাও এবার

শীতের প্রবাহে ডানা তোমার ভাঙে যদি

দোষ দিবে কার?

করো যদি চেঁচামেচি গোলমাল

ভেবে নেবো হয়ে গ্যাছো বেসামাল।

নিরপেক্ষ অস্তিত্বই সুখের সংজ্ঞা।

শব্দের স্বাধীনতায় ৫২ হাঁটে আজো

অনাবিল শান্তিতে।

যে স্বাধীনতায় মিশে থাকে কুটিল স্বেচ্ছাচার

আর পিঁপড়া বিদ্যার অপক্ব লিখন।

মানুষের সমাজে চিরকাল এ গর্হিত পাপাচার

যা কখনো নয় বিশুদ্ধতার শিক্ষণ।

হিংসার বীজে বোনা ফসিল ফসল

বনসাই বলো আর যাই লিখো

এ সবই মৃত দর্শনের জারি গান মাত্র।

এতে কুঁড়ি মুকুল ফল অধরা সকল।

আমি সেই পথচারী।

যার পথ আগলানো নয়-

কস্মিনকালেও অতি সহজ কাজ।

অভিমান ঘন হলে বাষ্প চিতই।

বুনটের বাবুই সম রচনা তাঁর।

কল্পনাতীত; ভুলো না এ কথা!

কালজয়ী এপিটাফ।

ঈদ সাময়িকী ২০১৬'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj