নৈঃশব্দের ক্রন্দন জাগে : মোশাররফ হোসেন ভূঞা

সোমবার, ৪ জুলাই ২০১৬

যন্ত্র ও জনতার ক্রমাগত কোলাহলে মুখোমুখি দাঁড়িয়ে-

সুদূর অতীতের জন্য হৃদয়ে জাগে নৈঃশব্দের দগ্ধিভূত ক্রন্দন

নির্জনে একাকী ডুবে যাই নোনাজল সমুদ্রের গহীনতর গভীরে।

নাগরিক জীবনের ইন্দ্রজালিক ব্যস্ততা জলাঞ্জলি দিয়ে-

কেবলই ছুটে যেতে ইচ্ছে করে মুক্তবিহঙ্গ ডাকা দুরন্ত কৈশোরে

কিংবা চৈত্রের দুুপুরে তৃষ্ণার্ত ঘুঘুডাকা ছোট্ট সবুজ বনের ধারে।

আশৈশবের স্মৃতিমাখা বড়দল গ্রামের মেঠোপথের ধূলি মেখে-

যে পথ কংক্রিট পায়ে এঁকেবেঁকে হেঁটে গেছে বহু দূর

এতোদিন পর তাকে নিয়ে আজ কেন জানি এতো অস্থিরতা।

নাড়ির টানে বাড়ির টানে অদম্য গতিতে বার রার ছুটে যেতে চায়-

যেখানে ঘরের চৌকাঠে মমতাময়ী মায়ের হাতে বেঁধে রাখা রক্ষা

দখিনার দোলায় দুলে ওঠে আর আমাকে ডাকে আয় ফিরে আয়।

কতো যে পুরনো পদচি?েহ্ন নতুন পদচিহ্ন পড়েছে ঢাকা-

কবে কোথায় কোন পথিক হারিয়েছে গন্তব্যের সোনাফলা পথ

সে সব ভাবনা এখনও সম্মুখে প্রশ্নার্ত চি?েহ্নর মতো থমকে দাঁড়ায়।

সমুদ্রের বালুকা বেলায় সামুদ্রিক শামুকের মন্থর গতিকে-

সঙ্গী করে ধ্যানে জাগরণে হেঁটে চলেছি ক্রমাগত আপন গন্তব্যে

আজ অবেলায় কেউ কি বাড়াবে করুণায় ভেজা দৃশ্যমান দুটি হাত।

ঈদ সাময়িকী ২০১৬'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj