আমার কবিতা : সম্পদ বড়–য়া

সোমবার, ৪ জুলাই ২০১৬

আমার কবিতা নিয়ে বড় বেশি ভাবনায় আছি

বড়ই বেয়াড়া সেতো, নিজে নিজে কোথা চলে যায়

আকাশ অরণ্য চাঁদ ঘুরে দেখে, ঝলমলে আলো,

মিতালী পাতাতে চায় অন্ধকারে, অমাবস্যা কালো,

তৃষ্ণায় আকণ্ঠ ডুবে পান করে ভালবাসা-জল।

ঝরনার কাছে গেলে একে একে খুলে আবরণ

জল দেখে নেমে পড়ে কবিতার কোমল শরীর।

গলায় গলায় ভাব সূর্যমুখী গোলাপের সাথে

মল্লিকা টগর জুঁই সারাদিন হাসে অকারণে।

কবিতা হঠাৎ দেখি গণিকার ঘরে শুয়ে আছে।

যৌবন-সিন্দুক থেকে চুরি করে কামজ সময়

শরীরের ছলাকলা শিখে নেয় কামুক প্রেমিক।

কবিতা তাদের সাথে কতশত রঙ্গরস করে।

আমার কবিতা দেখি ঢুকে পড়ে শ্লোগান মিছিলে

বারুদের গন্ধ দিয়ে রাজপথে ছড়ায় উত্তাপ

দাবির পেছনে দাবি, চাই চাই সব কিছু চাই,

সুখ চাই শান্তি চাই, সচ্ছলতা, ভালবাসা চাই

কবিতা সর্বত্রগামী হতে চায়, স্বাধীনতা চায়।

কবিতার সারা দেহে ক্লান্তি নামে, আয়েশে ঘুমোয়,

অক্ষর কুঁকড়ে থাকে, পঙ্ক্তিরা পারে না দাঁড়াতে

শরীরের ভাঁজে ভাঁজে জমে ওঠে বার্ধক্যের ক্লেদ।

হাহাকার বুকে নিয়ে আমিহীন আমার কবিতা।

ঈদ সাময়িকী ২০১৬'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj