গাজীপুর থেকে ২ অপহৃত উদ্ধার, আটক ৫

শনিবার, ২০ মে ২০১৭

কাগজ প্রতিবেদক : গাজীপুর থেকে ১টি বিদেশি পিস্তল ও ২ রাউন্ড গুলিসহ অপহরণকারী চক্রের ৫ সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। সে সময় অপহৃত দুই ভিকটিমকেও উদ্ধার করা হয়। এ বিষয়ে গতকাল শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর কারওয়ান বাজার র‌্যাব গণমাধ্যম কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে ব্রিফ করেন র‌্যাব-১-এর অধিনায়ক লে. কর্নেল সারোয়ার বিন কাশেম।

তিনি বলেন, মো. মিরাজুল ইসলাম (২৫) ও মো. রাকিবুল ইসলাম (১৯) নামে দুই ব্যক্তি গত বৃহস্পতিবার কাজের উদ্দেশ্যে গাজীপুরে আসেন। ওই দিন সন্ধ্যার দিকে জয়দেবপুর চৌরাস্তা এলাকা থেকে অস্ত্রের মুখে তাদের অপহরণ করে অপহরণকারীরা। পরে গাজীপুরের টেকনগপাড়া এলাকার মো. হারুনুর রশিদের নির্মাণাধীন বাড়ির দোতলায় আটকে রাখা হয় তাদের। পরে অপহৃতদের মোবাইল দিয়েই তাদের পরিবারের সদস্যদের কাছে মুক্তিপণ দাবি করে অপহরণকারীরা। র‌্যাবের এ কর্মকর্তা আরো বলেন, গতকাল ভোরের দিকে অপহৃত ভিকটিম মো. মিরাজ আলী কৌশলে ওই বাড়ির দোতলা থেকে পাশের বালুর স্ত‚পে লাফ দিয়ে পালিয়ে যান। পরবর্তী সময়ে গাজীপুর এলাকার একটি বাড়ির দেয়ালে র‌্যাব গাজীপুর ক্যাম্পের পোস্টার দেখে মোবাইল নাম্বার সংগ্রহ করেন। দ্রুত ওই নম্বরে ফোন করে বিষয়টি ক্যাম্প কমান্ডারকে জানান। তাৎক্ষণিক ক্যাম্প কমান্ডারের নেতৃত্বে একটি আভিযানিক দল ওই এলাকায় পৌঁছায় এবং ভিকটিম মিরাজের দেখানো বাড়িটিকে ঘিরে ফেলে। পরে নির্মাণাধীন সম্পূর্ণ বাড়িটি তল্লাশি করে ভবনের দোতলা থেকে অপর ভিকটিম মো. রাকিবুল ইসলামকে উদ্ধার করা হয়। এ ছাড়া তখন সেখান থেকে মো. রাব্বি হাসান নিলয় (২২), মো. রাকিব (২০), মো. শাকিল মোল্লা (২১), মো. সোহেল রানা (২০) ও মো. সোহাগ (২৩) নামের অপহরণকারী চক্রের সদস্যদের হাতেনাতে গ্রেপ্তার করা হয়। সে সময় অপরহণকারী মো. রাব্বি হাসান নিলয়ের দেহ তল্লাশি করে ২ রাউন্ড গুলিসহ, ১টি বিদেশি পিস্তল এবং অন্য আসামিদের কাছ থেকে ৩টি চাকু, ভিকটিমদের দুটিসহ ৬টি মোবাইল, ভিকটিমের ১টি ক্রেডিট কার্ড উদ্ধার করা হয়। তিনি বলেন, গ্রেপ্তারকৃতরা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছে, তারা দীর্ঘদিন ধরে এভাবে মানুষকে অপহরণ করে সব লুট করে নিত এবং পরিবারের কাছ থেকে মুক্তিপণ আদায় করত। আসা-যাওয়ার মধ্যে বোকা ধরনের লোকদের টার্গেট করত বলে জানায় তারা। চক্রটির একজন গাড়ির কাজ করে ও একজন পড়াশোনা করে বলে জানা গেছে। বাকিরা এমন কোনো অপারেশনের খোঁজ পেলে এক সঙ্গে দলবদ্ধ হয়ে অপহরণ করত বলেও জানান লে. কর্নেল সারোয়ার বিন কাশেম।

প্রথম পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj