কেরানীগঞ্জে ডিবি পুলিশ কর্তৃক গৃহবধূ লাঞ্ছিত

বুধবার, ৩০ আগস্ট ২০১৭

কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি : দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের কদমতলী এলাকায় মোসা. বিপাসা আক্তার (২২) নামে এক গৃহবধু ঢাকা জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের কনস্টেবল সোহেল ও রুবি কর্তৃক লাঞ্ছিত হয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। এসময় তিনি যমুনা ব্যাংক কেরানীগঞ্জ শাখা থেকে টাকা উত্তোলন করে ফিরছিলেন। বিপাশার স্বামীর নাম মো. শরিফ। তিনি আগানগর এলাকায় স্বামী-সন্তান নিয়ে বসবাস করেন। এ ঘটনার পর স্থানীয় লোকজন তাদের আটক করে ব্যাংকের ভেতরে নিয়ে যায়। পরে ডিবি পুলিশের এএসআই ফারুক ও ওসি দিপক চন্দ্র সাহা ঘটনাস্থলে গিয়ে বিষয়টি মীমাংসার চেষ্টা করেন। এ ঘটনায় গতকাল সন্ধ্যায় কনস্টেবল সোহেলকে সাময়িক বরখাস্ত করে পুলিশ লাইনে পাঠানো হয়েছে বলে ওসি জানান।

লাঞ্ছিত গৃহবধূ মোসা. বিপাসা আক্তার জানান, আমি যমুনা ব্যাংক কেরানীগঞ্জ শাখা থেকে ৩০ হাজারা টাকা উত্তোলন করে সিঁড়ি বেয়ে নিচে নামার সময় একজন মেয়ে ও লুঙ্গি পরিহিত ছেলে আমাকে দাঁড় করিয়ে আমার হাতের ব্যাগ চেক করতে চায়। প্রথমে দিতে না চাইলে তারা জোর করে আমার হাত থেকে ব্যাগ ছিনিয়ে নেয়। টাকা-পয়সা দেখে জিজ্ঞাসা করে আমি এত টাকা কোথায় পেলাম। আমি তাদের জিজ্ঞাসা করি- আপনারা কারা, আমার সঙ্গে এ রকম করছেন কেন। এ কথার সঙ্গে সঙ্গে মেয়েটি আমাকে এলোপাতাড়ি মারধর করতে থাকে। তখন আমি চিৎকার করলে আশপাশের লোকজন এসে তাদের আটক করে ব্যাংকের ভেতর নিয়ে যায়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক প্রত্যক্ষদর্শী জানান, লাঞ্ছিত মেয়েটিকে ডিবি পুলিশ পরিচয়দানকারীরা বিভিন্ন প্রকার ভয়ভীতি ও ইয়াবা ব্যবসায়ীর কথা কলে টাকা দাবি করে। মেয়েটি টাকা দিতে না চাইলে তাকে মারধর করতে থাকে। এরপর আমরা ওই মেয়েসহ ডিবি পুলিশ পরিচয়দানকারীদের ব্যাংকের ভেতর নিয়ে যাই। পরে পুলিশ এসে তাদের ছাড়িয়ে নিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে ঢাকা জেলা ডিবি পুলিশের ওসি দিপক চন্দ্র সাহা বলেন, সম্পূর্ণ বিষয়টি মিসগাইডেড। তাদের কাছে ইনফরমেশন ছিল ওই ব্যাংক থেকে একজন মাদক ব্যবসায়ী নারী সিঁড়ি বেয়ে নামছেন। আর ওই সময় লাঞ্ছিত ভদ্র মহিলাও নামছিল। তারা তাকে মাদক ব্যবসায়ী ওই নারী ভেবে এ কাজ করেছে। কিন্তু আমার ডিবি পুলিশ যেহেতু কোনো অফিসার ছাড়া সেখানে গিয়েছে, তাই তারা অপরাধ করেছে। আমি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বিষয়টি জানালে কনস্টেবল সোহেলকে সাময়িক বরখাস্ত করে পুলিশ লাইনে পাঠানো হয়েছে, অন্য মহিলা কনস্টেবল রুবির ব্যাপারেও ব্যবস্থা নেয়া হবে।

দ্বিতীয় সংস্করন'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj