‘তখন পঁচাত্তর’ এর প্রিমিয়ার শো

রবিবার, ১৪ জানুয়ারি ২০১৮

কাগজ প্রতিবেদক : জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যাকাণ্ড নিয়ে সহিদ রাহমানের গল্প ‘মহামানবের দেশে’ অবলম্বনে নির্মিত তৃতীয় কাহিনীচিত্র ‘তখন পঁচাত্তর’ এর প্রিমিয়ার শো গতকাল শনিবার বিকেলে শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালা মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়েছে। তিয়াসা মাল্টিমিডিয়া আয়োজনে অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সাবেক তত্ত্বাধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ও মানবাধিকার নেত্রী সুলতানা কামাল। প্রিমিয়ার শোর উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। অনুষ্ঠানে অতিথি ছিলেন একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধকালীন সাব-সেক্টর কমান্ডার লে. কর্নেল জাফর ইমাম (অব.) বীর বিক্রম, বরেণ্য চিত্রশিল্পী মুস্তফা মনোয়ার, সাংবাদিক কামাল লোহানী, সাংবাদিক আবেদ খান, সঙ্গীত পরিচালক শেখ সাদী খান, সাবেক সংসদ সদস্য মাহমুদুর রহমান বেলায়েত, ডাকসুর সাবেক ভিপি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম, ফজলুল হক মুসলিম হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান, এফবিসিসিআইয়ের পরিচালক ড. মোহাম্মদ ফারুক, আরটিভির অনুষ্ঠান প্রধান দেওয়ান শামসুর রকিব ও ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সহসভাপতি জহির উদ্দিন মাহমুদ লিপ্টন।

গত ১ জানুয়ারি থেকে কাহিনীচিত্রের শুটিং শুরু হয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বাসভবন, শহীদুল্লাহ হল, ফজলুল হক মুসলিম হল, কমলাপুর রেল স্টেশন ও সাতারকুলে। সহিদ রাহমানের মহামানবের দেশে গল্পের চিত্রনাট্য তৈরি করেছেন মিরন মহিউদ্দীন। পরিচালনায় আবু হায়াত মাহমুদ। কাহিনীচিত্রের বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করছেন রাইসুল ইসলাম আসাদ, এস এম মহসীন, রুনা খান, শ্যামল মাওলা, উর্মিলা শ্রাবন্তী কর, রাশেদ মামুন অপু, রামিজ রাজু, হিন্দোল রায় প্রমুখ। কাহিনীচিত্রের প্রযোজক মোহাম্মদ মোর্শেদ আলম। নির্বাহী প্রযোজক শামীম চৌধুরী ও আবু সুফিয়ান রতন। প্রযোজনা তিয়াসা মাল্টিমিডিয়া। আগামী মার্চ অথবা আগস্টে কাহিনীচিত্রটি একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলে প্রচারের সম্ভাবনা রয়েছে।

অলিয়ঁস ফ্রঁসেজে চলচ্চিত্রে নারীর ভূমিকা বিষয়ক সেমিনার : ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের অংশ হিসেবে শুরু হয়েছে ‘চতুর্থ আন্তর্জাতিক উইমেন ফিল্ম মেকারস কনফারেন্স’।

গতকাল শনিবার রাজধানীর অলিয়ঁস ফ্রঁসেজ মিলনায়তনে প্রদীপ প্রজ্বলনের মধ্য দিয়ে সম্মেলনের উদ্বোধন করেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম।

এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উৎসবের প্রধান পৃষ্ঠপোষক পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, সম্মেলনের প্রশিক্ষক সিডনি লেভিন, উৎসব পরিচালক আহমেদ মুজতবা জামাল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উইমেন ও জেন্ডার স্টাডিজ বিভাগের চেয়ারম্যান ড. সৈয়দ শেখ ইমতিয়াজ প্রমুখ। রাজনীতিসহ বাংলাদেশের বিভিন্ন ক্ষেত্রে নারীর ক্ষমতায়নের কথা উল্লেখ করে তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম বলেন, এ ধরনের বিশেষ সম্মেলন সন্দেহাতীতভাবে এ দেশের চলচ্চিত্রাঙ্গনে নারী চলচ্চিত্র নির্মাতা তৈরিতে ভূমিকা রাখবে।

তিনি বলেন, এ দেশের নারীরা প্রায় সব ক্ষেত্রেই যোগ্যতার প্রমাণ রাখছেন। আগামীতেও চলচ্চিত্র ও মিডিয়া জগতে পুরুষ ও নারীর একসঙ্গে কাজ করতে হবে। পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেন, সব ক্ষেত্রে নারীর সমান অংশগ্রহণ ও অধিকার নিশ্চিত করতে সব সময়ই সচেষ্ট সরকার। চলচ্চিত্র উৎসব ও নারী নির্মাতা সম্মেলনে সরকারের সব ধরনের সহযোগিতা অব্যাহত রাখারও আশ্বাস দেন তিনি।

সম্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশনে আলোচনায় অংশ নেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক ড. গীতি আরা নাসরিন, চলচ্চিত্রকার বিপাশা হায়াত ও অভিনেত্রী বন্যা মির্জা।

এই জনপদ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj