মাদারীপুরে জাতীয় সঙ্গীত ছাড়া উন্নয়ন মেলা উদ্বোধন : শিল্পীদের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান বর্জন

রবিবার, ১৪ জানুয়ারি ২০১৮

জাহাঙ্গীর আলম, মাদারীপুর থেকে : সারা দেশের মতো মাদারীপুরে তিন দিনের উন্নয়ন মেলা গত বৃহস্পতিবার শুরু হয়েছে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন না করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয় শিল্পীরা। পাশাপাশি নির্ধারিত সময়ের আগে মঞ্চ থেকে শিল্পীদের নামিয়ে দেয়ায় তিন দিনের এ উন্নয়ন মেলার সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান বর্জন করেছেন তারা।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় জেলা প্রশাসনের কাছে লিখিতভাবে বিষয়টি জানান বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতারা। উন্নয়ন মেলায় ওই শিল্পীদের জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করার কথা ছিল। এ ছাড়া সন্ধ্যার অনুষ্ঠানে স্থানীয় শিল্পীদের মঞ্চ থেকে নামিয়ে দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে।

একাধিক সূত্র ও শিল্পীদের অভিযোগে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার সকালে মাদারীপুরে তিন দিনের উন্নয়ন মেলা জাতীয় সঙ্গীত, কুরআন তেলাওয়াত ও গীতাপাঠ ছাড়াই উদ্বোধন করা হয়েছে। মেলায় জেলা প্রশাসনের আমন্ত্রণ পেয়েও জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করতে না পেরে ক্ষোভ ও নিন্দা জানান স্থানীয় শিল্পীরা। এ কারণে সন্ধ্যায় তারা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান বর্জন করেন।

মাদারীপুরের শিল্পীরা আরো জানান, উন্নয়ন মেলা উপলক্ষে কয়েক দিন আগে জেলার একাংশ শিল্পীকে মৌখিকভাবে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের জন্য আমন্ত্রণ জানায় জেলা প্রশাসন। শিল্পীদের জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল, সকাল ৯টার মধ্যে উন্নয়ন মেলার মঞ্চে উপস্থিত থাকতে হবে। শিল্পীরাও জেলা প্রশাসনের কথামতো সঠিক সময়ে বিভিন্ন বাদ্যযন্ত্রসহ হাজির হন মেলা প্রাঙ্গণে। তখন তারা জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের জন্য জেলা প্রশাসনের কাছে অনুমতি চাইলে তাদের অপেক্ষা করতে বলা হয়। এরপর তাদের জানানো হয় উন্নয়ন মেলায় কোনো জাতীয় সঙ্গীত বা অন্য কিছু পরিবেশন করা হবে না। তাই স্থানীয় শিল্পীরা মেলা প্রাঙ্গণ থেকে চলে যান।

মনিরা ইয়াসমিন নামে এক দর্শনার্থী বলেন, উন্নয়ন মেলায় বিদেশি গান ও নাচ হলো। তাতে মনে হচ্ছে, দেশ থেকে বাংলা সংস্কৃতি উঠে গেছে। আমরা এমন ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।

জেলা শিল্পকলা একাডেমির সঙ্গীত প্রশিক্ষক নন্দিনী হাওলাদার বলেন, আমরা চরমভাবে লজ্জিত। আমাদের আমন্ত্রণ জানিয়ে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করতে দেয়নি প্রশাসন। আমরা এর নিন্দা জানাই। সঙ্গীত শিল্পী রনি মোল্লা বলেন, এটি একটা ন্যক্কারজনক ঘটনা। শিল্পীদের অপমান কিছুতেই সহ্য করার মতো নয়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জেলা প্রশাসকের সরকারি মোবাইল নম্বরে যোগাযোগ করে তাকে পাওয়া যায়নি। তবে জেলা প্রশাসনের এনডিসি মো. আল-মামুন বলেন, এ বিষয়ে এখন কিছু বলতে পারব না। সকালে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান একটু দেরিতে শুরু হওয়ায় এলোমেলো হয়ে গেছে। আর স্থানীয় শিল্পীদের অনুষ্ঠান বয়কটের বিষয়ে আমি জানি না। পরে বিস্তারিত জেনে জানাব।

এই জনপদ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj