গ্যাস সংকটে চট্টগ্রামবাসী নাকাল চুলা জ্বলে না আর…

রবিবার, ১৪ জানুয়ারি ২০১৮

চট্টগ্রাম অফিস : জ্বালানি গ্যাস সংকটে নাকাল চট্টগ্রাম নগরবাসী। জ্বালানি গ্যাস সংকটের কারণে এমনো অনেক এলাকা রয়েছে যেখানে ১৫ দিনেরও বেশি সময় ধরে গ্যাসের সরবরাহ প্রায় বন্ধ রয়েছে। ওইসব এলাকার রান্নার চুলাও জ্বলছে না। অনেকেই হোটেলের ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছেন পেট চালানোর তাগিদে। কিন্তু অনেক এলাকার খাবার হোটেলগুলোতেও গ্যাসলাইনে গ্যাসের সরবরাহ ঠিকমতো না থাকায় সেখানেও ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে। মাসখানেকেরও বেশি সময় ধরে এ সংকটে ভুগলেও সহসাই কোনো সমাধানের আশ্বাস দিতে পারছে না কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি।

রাজধানী ঢাকায় একটি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা দীপ্তা রক্ষিত চট্টগ্রামে কয়েক দিনের জন্য কাজে এসে ভোগান্তিতে পড়েছেন খাবার নিয়ে। উঠেছেন তার মায়ের বাসায় রহমতগঞ্জে। কিন্তু গ্যাস সরবরাহ না থাকায় তাকে দুপুরের খাবার খেতে হচ্ছে সন্ধ্যায়। এমন অবস্থা চট্টগ্রাম নগরীর বিভিন্ন এলাকাতেই চলছে। নন্দনকাননের বাসিন্দা মোহাম্মদ সেলিম জানান, তিনি সকালের নাশতা তো বটেই দুপুরের খাবারো বাইরে থেকে কিনে খাচ্ছেন। বিশেষ করে স্কুল কলেজগামী শিক্ষার্থী ও অফিসগামী মানুষদের বেশি কষ্টে পড়তে হচ্ছে।

কোনো এলাকায় সকালে ঘণ্টাখানেক বা দুই ঘণ্টার জন্য গ্যাস থাকলেও আবার চলে যায় ৪-৫ ঘণ্টার জন্য। ফলে রান্নার ক্ষেত্রে চরম দুর্ভোগে পড়ছেন গৃহিণীরা। অনেকে আবার যেসব এলাকার বাসাবাড়িতে গ্যাস পাওয়া যাচ্ছে সেসব এলাকায় আত্মীয়স্বজন বা পরিচিতদের বাসায় গিয়ে রান্না করে আনার চেষ্টা করছেন। আর পাইপ লাইনে গ্যাসের সংকটের কারণে অনেকে ঝুঁকছেন সিলিন্ডারের গ্যাসের ওপর। তাই সিলিন্ডারের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় সুযোগ বুঝে ব্যবসায়ীরাও সিলিন্ডারের দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন।

নগরীর বায়েজীদ থানাধীন বালুছড়া এলাকাতে গত ১৫-২০ দিন ধরে গৃহস্থালিতে গ্যাসের সরবরাহ না থাকায় সে এলাকার জনগণকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশনের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, এমনিতেই শীতকালে গ্যাসের চাপ কম থাকে, অতিরিক্ত শীতে গ্যাসের পাইপলাইনে গ্যাস জমাট বেঁধে যাওয়ায় এ সমস্যা প্রবল হচ্ছে। তা ছাড়া চট্টগ্রামের অধিকাংশ বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রগুলো গ্যাসনির্ভর হওয়াতে সেসব কেন্দ্র্রে সরবরাহ করতে হচ্ছে গ্যাস। কিন্তু সেখানেও ঠিকমতো গ্যাস সরবরাহ করা সম্ভব হচ্ছে না। ফলে বিদ্যুৎ উৎপাদনও ব্যাহত হচ্ছে, বিদ্যুতের লোডশেডিংও হচ্ছে এ কারণে।

প্রথম পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj