যুব মহিলা লীগের সম্মেলনকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা

বৃহস্পতিবার, ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি : পাইকগাছায় আওয়ামী যুব মহিলা লীগের সম্মেলনকে কেন্দ্র করে দুপক্ষের মধ্যে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। গত মঙ্গলবার বিকেলে মাসুমা-জুলি-ময়না অনুসারীর একাংশের নারী কর্মীদের উপেক্ষা করে জিরো পয়েন্ট এলাকায় সম্মেলন আয়োজন করলে উপেক্ষিত নাহার-সুচিত্রা অনুসারী কর্মীদের তোপের মুখে জেলা ও কেন্দ্রীয় নেতারা কমিটি ঘোষণা না করেই তড়িঘড়ি করে সম্মেলনস্থল ত্যাগ করেন। এতে আয়োজিত সম্মেলন পণ্ড হয়ে যায়। সম্মেলন চলাকালীন বিক্ষুব্ধ শত শত কর্মী সম্মেলনের পাশে অবস্থান নিলে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।

এ সময় ওসির নেতৃত্বে থানা পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখেন। সম্মেলনকে ঘিরে দুপক্ষের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। জানা গেছে, মঙ্গলবার বিকেলে পৌর সদরের জিরোপয়েন্টের শ্রমিক লীগের অস্থায়ী কার্যালয়ে আওয়ামী যুব মহিলা লীগের উপজেলা ও পৌর কমিটির সম্মেলন আয়োজন করা হয়। মাসুমা-জুলি শেখ-ময়না অনুসারী নারী কর্মীরা এ সম্মেলনের আয়োজন করেন। সম্মেলনে জেলা ও কেন্দ্রীয় নেতারা অতিথি হিসেবে অংশগ্রহণ করেন। যদিও সম্মেলনটি আ.লীগের দলীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হবে মর্মে নাহার অনুসারীরা সেখানে অবস্থান নেয়। এদিকে অধিকাংশ কর্মীদের উপেক্ষা করে সম্মেলন আয়োজন করা হয়েছে এমন অভিযোগে বিকেল ৩টার দিকে জেলা পরিষদ সদস্য নাহার-সুচিত্রার নেতৃত্বে কয়েকশ নারীকর্মী উপজেলা আ.লীগের দলীয় কার্যালয়ে অবস্থান নেয়।

পরে বিক্ষুব্ধ কর্মীরা মিছিল আকারে সম্মেলন স্থলের জিরো পয়েন্ট এলাকায় অবস্থান নেয়। এ সময় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে ওসি আমিনুল ইসলামের নেতৃত্বে থানা পুলিশ কঠোর অবস্থান নেয়। পরিস্থিতি বেগতিক দেখে সম্মেলনে আসা মাসুমা-জুলি অনুসারীদের কর্মীরা ধীরে ধীরে সম্মেলন থেকে চলে যাওয়া শুরু করে এবং পরিস্থিতি অস্বাভাবিক মনে করে কমিটি ঘোষণা না করেই জেলা ও কেন্দ্রীয় নেতারা সম্মেলন শেষ করে দ্রুত চলে যান। এতে আয়োজিত সম্মেলন অনেকটাই পণ্ড হয়ে যায়। চলে যাওয়ার সময় বিক্ষুব্ধ কর্মীদের তোপের মুখে পড়েন জেলা ও কেন্দ্রীয় নেতারা।

এ ব্যাপারে জেলা পরিষদ সদস্য নাহার আক্তার বলেন, আমাদের সঙ্গে কয়েকশ যুব মহিলা লীগের কর্মী ছিল। আর যারা আমাদের উপেক্ষা করে সম্মেলনের আয়োজন করেন সেখানে সামান্য কিছু নারী কর্মী ছাড়া সবাই পুরুষ নেতাকর্মী ছিল। আমাদের উপেক্ষা করার বিষয়টি জেলা ও কেন্দ্রীয় নেতাদের অবহিত করলে তারা সবার সমন্বয়ে কমিটি ঘোষণা দেবেন বলে আমাদের আশ্বস্ত করেছেন।

চলে যাওয়ার সময় সম্মেলনে কমিটি ঘোষণা করা হয়নি, পরবর্তী সময়ে ঘোষণা করা হবে উপস্থিত সাংবাদিকদের অবহিত করেন যুব মহিলা লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি অধ্যক্ষ আফসানা হাসান ডেইজী। ওসি আমিনুল ইসলাম বিপ্লব জানান, যুব মহিলা লীগের সম্মেলনকে কেন্দ্র করে দুটি পক্ষের সৃষ্টি হয়। এ নিয়ে উত্তেজনা সৃষ্টি হলে থানা-পুলিশ কঠোর অবস্থানে থাকার কারণে সম্মেলনকে ঘিরে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

সারাদেশ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj