খালেদার দণ্ডাদেশের রায়ের কপি মেলেনি : আজ পেলে রবিবার আপিল

বৃহস্পতিবার, ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

কাগজ প্রতিবেদক : জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার রায়ের সত্যায়িত অনুলিপি গতকাল বুধবারও পায়নি বিএনপি। এতে হতাশায় থাকা দলটির অপেক্ষা আরও বাড়ল। তবে আজ বৃহস্পতিবার রায়ের কপি পাওয়ার আশা প্রকাশ করে খালেদার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া আগামী রবিবার আপিল করার কথা জানান।

জানা যায়, বিশেষ জজ আদালত-৫ থেকে গতকাল বুধবার রায়ের সত্যায়িত অনুলিপি দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু কিছু কাজ বাকি থাকায় শেষ পর্যন্ত তা দেয়া হয়নি। খালেদা জিয়ার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া গতকাল বিকেল ৫টায় সাংবাদিকদের বলেন, রায়ের সার্টিফায়েড কপি আজও পাইনি। আগামীকাল (আজ) পাব বলে আশা করছি। রায়ের অনুলিপি পাওয়ার পর উচ্চ আদালতে আপিল করে জামিনের আবেদন করবেন বিএনপি চেয়ারপারসন।

খালেদা জিয়ার আরেক আইনজীবী জাকের হোসেন ভুঁইয়া বলেন, আমরা রায়ের কপির জন্য গিয়েছিলাম। কিন্তু আমাদের তা দেয়া হয়নি। পেসকার জানিয়েছেন, আজ (গতকাল) বেলা ৩টার দিকে বিচারক মূল রায়টা ছেড়েছেন। এ রায়ের একটা কপি আমাদের দেয়া হবে। এটি বৃহস্পতিবার পাওয়া যাবে বলে আশা করছি।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি রায়ের পর থেকে খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা এ রায় চ্যালেঞ্জ করে উচ্চ আদালতে আপিল করার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন। তবে রায়ের অনুলিপি না পাওয়ায় আবেদন করতে পারছেন না। আপিল আবেদনের পাশাপাশি সাবেক প্রধানমন্ত্রীর জামিন আবেদনও করা হবে বলে জানিয়েছেন তার আইনজীবীরা। রায় ঘোষণার দিনই এর অনুলিপি জোগাড়ের চেষ্টা করেছিলেন আইনজীবীরা। কিন্তু তারা পাননি। এ কারণে গত রবিবার আপিল করার কথা থাকলেও তা করা যায়নি।

এরপর গত সোমবার রায়ের অনুলিপির জন্য তিন হাজার পৃষ্ঠা কোর্ট ফোলিও স্ট্যাম্প আদালতে দাখিল করেন খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা। এই রায়টি ৬৩২ পৃষ্ঠার। রায়ের দিন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বলেছিলেন, বড় রায়ের অনুলিপি এক-দুই দিনে পাওয়া কঠিন। বিএনপি চেয়ারপারসনের আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া জানান, মঙ্গলবার আদালত থেকে তাদের বলা হয়েছে, বুধবার তাদের রায়ের অনুলিপি দেয়া হবে। তাই তারা রায়ের অনুলিপির জন্য আদালতে যান। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা মেলেনি।

রায়ের পাশাপাশি খালেদা জিয়ার পক্ষে মামলাটির এজাহার, অভিযোগপত্র, সাক্ষীদের জেরা ও জবানবন্দিসহ আনুষঙ্গিক আদেশগুলোর অনুলিপিও চাওয়া হয়েছে। রায় ছাড়া অন্য সব অনুলিপি তৈরির কাজ মঙ্গলবার শেষ হয়েছে। এখন শুধু রায়ের অনুলিপি তৈরির কাজ বাকি আছে, যা বিচারকের কাছ থেকে পাওয়ার পর কোনো সংশোধন থাকলে তা সংশোধন করে প্রিন্ট দেয়া শুরু হবে। তারপরই কেবল রায়ের অনুলিপি খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের সরবরাহ করা হবে।

প্রথম পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj