ডুমুরিয়ায় বিদ্যালয়ে নিয়োগ বাণিজ্যের অভিযোগ

বৃহস্পতিবার, ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

ডুমুরিয়া (খুলনা) প্রতিনিধি : ডুমুরিয়া উপজেলার কুলটি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও সভাপতির বিরুদ্ধে ১২ লাখ টাকা ঘুষ বাণিজ্যের অভিযোগ উঠেছে। স্কুলের নি¤œমান সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর পদে নিয়োগ পরীক্ষায় তাদের পছন্দের প্রার্থীর কাছ থেকে এ টাকা হাতিয়ে নেয় বলে জানা গেছে। এ ঘটনায় পরীক্ষার ফল বাতিল ও সুষ্ঠু তদন্তের দাবিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ করে পরীক্ষার্থীসহ স্থানীয়রা।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, ডুমুরিয়া উপজেলার কুলটি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নি¤œমান সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর পদে ১০ জন প্রার্থী আবেদনপত্র জমা দেন। নির্ধারিত সময় অনুযায়ী গত ৯ ফেব্রুয়ারি সকালে ডুমুরিয়া সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ে তাদের নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। পরীক্ষা কেন্দ্রে এসেই অভিযোগকারীরা জানতে পারেন, প্রধান শিক্ষক মিলন কান্তি তরফদার ও সভাপতি রঞ্জন কুমার তরফদার ১২ লাখ টাকার বিনিময়ে একই গ্রামের অনুপ রায়কে নিয়োগ পাকা করে রেখেছেন।

এ প্রসঙ্গে অভিযোগকারী শুভ রায় ও দেব কুমার তরফদার জানান, বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের কিছু দিন পরেই টাকার বিনিময়ে হেডস্যার ও সভাপতি মালয়শিয়া থেকে ফিরে আসা অনুপ রায়কে ওই পদে নিয়োগ দিচ্ছে। তারপরেও আমরা ভেবেছিলাম ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সামনে হয়ত কোনো কারচুপি হবে না। কিন্তু সভাপতি রঞ্জন কুমার তরফদার ও প্রধান শিক্ষক মিলন তরফদার ১২ লাখ টাকার বিনিময়ে সুকৌশলে প্রশ্নপত্র ফাঁস করে পছন্দের প্রার্থী অনুপ রায়কে প্রথম স্থানে এনে তাকেই নিয়োগ দিচ্ছেন।

ডুমুরিয়া উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার ও নিয়োগ বোর্ডের সদস্য দেবাশীষ কুমার বিশ্বাস জানান, টাকা লেনদেনের বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে এ বিষয়ে প্রতিকার পেতে হলে আদালতে গেলেই ভালো হবে। ডুমুরিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ আশেক হাসান বলেন, অভিযোগ পেয়েছি এবং এ ব্যাপারে প্রযোজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সারাদেশ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj